জামাতে পুরো জুমার নামাজ না পেলে কী করবেন?

জামাতে ইমামের সঙ্গে প্রথম রাকাত থেকে নামাজ না পেলে কীভাবে নামাজ সম্পন্ন করা যায়, তা জানা প্রত্যেক মানুষের জন্য জরুরি। জুমার নামাজসহ অন্যান্য ওয়াক্তে মাসবুক ব্যক্তিদের নামাজ আদায়ের বিষয়টি তুলে ধরা হলো-

জুমার নামাজে মাসবুক হলে
কোনো ব্যক্তি যদি জুমা পড়তে এসে এক রাকাত পায় তবে সে ইমামের সালাম ফেরানোর পর বাকি এক রাকাত পড়ে নিলেই জুমা আদায় হয়ে যাবে।

অনুরুপভাবে কেউ দ্বিতীয় রাকাতের রুকুর আগে ইমামের সঙ্গে নামাজে অংশগ্রহণ করতে পারলে ইমামের সালাম ফেরানোর পর দ্বিতীয় রাকাত আদায় করলে জুমা আদায় হয়ে যাবে।
কিন্তু যদি কেউ নামাজের দ্বিতীয় রাকাতে রুকুর পর জামাতে অংশগ্রহণ করে তবে তার এ অংশগ্রহণ জুমা হিসেবে বিবেচিত হবে না। বরং তাকে ইমামের সালাম ফেরানোর পর ৪ রাকাত নামাজ আদায় করতে হবে। জামাতে অংশগ্রহণের সময় জোহরের ৪ রাকাত নামাজ আদায়ের নিয়তে শমিল হবে এবং তা আদায় করে নেবে। হাদিসে পাকে এসেছে-

হজরত ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, ‘যে ব্যক্তি জুমার এক রাকাত পেয়ে যায়, সে ব্যক্তি যেন আর এক রাকাত পড়ে নেয়। কিন্তু যে (দ্বিতীয় রাকাতের) রুকু না পায়, সে যেন জোহরের ৪ রাকাত পড়ে নেয়।’ (তাবারানি, বায়হাকি, মুসান্নেফে ইবনে আবি শায়বা)

আর যদি কোনো ব্যক্তি জুমার নামাজ না পায় বা মসজিদে গিয়ে দেখে জুমা নামাজ শেষ হয়ে গেছে তবে ওই ব্যক্তি জোহরের ৪ রাকাত নামাজ পড়ে নেবে। কারণ জামাত ছাড়া একা একা জুমার নামাজ পড়া যায় না।

চার রাকাত বিশিষ্ট ফরজ নামাজে মাসবুক হলে
যে ব্যক্তি ইমামের সঙ্গে ৪ রাকাত বিশিষ্ট ফরজ নামাজ (জোহর-আসর-এশা) এক রাকাত পেলো, তার প্রতি আবশ্যক হলো ইমামের সালাম ফেরানোর পর বাকি তিন রাকাত আদায় করা। সে দ্বিতীয় রাকাতে সুরা ফাতেহা ও অন্য একটি সুরা মিলিয়ে প্রথম তাশাহহুদের জন্য বসবে। এরপর বাকি দুই রাকাত শুধুমাত্র সুরা ফাতেহা পাঠ করবে। অর্থাৎ মাসবুক ব্যক্তি ইমামের সঙ্গে যেখান থেকে নামাজ পেয়েছে, সেখান থেকে তার নামাজের প্রথমাংশ ধরে বাকি নামাজ সম্পূর্ণ করবে।

তিন রাকাত বিশিষ্ট ফরজ নামাজে মাসবুক হলে
যে ব্যক্তি ইমামের সঙ্গে মাগরিবের নামাজের এক রাকাত পেলো সে ইমামের সালাম ফেরানোর পর দ্বিতীয় রাকাতে সুরা ফাতেহা ও অন্য একটি সুরা মিলিয়ে প্রথম তাশাহহুদের জন্য বসবে। এরপর তৃতীয় রাকাত শুধু সুরা ফাতেহা পাঠ করে আদায় করে শেষ তাশাহহুদের জন্য বসবে এবং পূর্বের নিয়মে সালাম ফেরাবে।

দুই রাকাত বিশিষ্ট নামাজে মাসবুক হলে
যে ব্যক্তি ইমামের সঙ্গে ফজর নামাজের এক রাকাত পেল সে ইমামের সালাম ফেরানোর পর দ্বিতীয় রাকাত সুরা ফাতেহা ও অন্য একটি সুরা মিলিয়ে তাশাহহুদের জন্য বসে বৈঠক শেষে সালাম ফিরাবে। যখন কেউ ইমামের শেষ বৈঠকের সময় মসজিদে প্রবেশ করে তখন সুন্নাত হলো সে যেন নামাজে শরিক হয় এবং ইমামের সালাম ফেরানো পরে তার নামাজ পূর্ণ করে।

আল্লাহ তাআলা জামাতে ছুটে যাওয়া নামাজ যথাযথভাবে আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.